Category Covered

how to do passport in bangladesh

বাংলাদেশে যারা পাসপোর্ট করতে চান তাদের জন্য নিয়মাবলী যেটা আমি মুখোমুখি হয়াছি :
 

আমি যে কি রকম ভোগান্তির শিকার হইছি সেটা বলে আর আপনার সময় নষ্ট করতে চাইনা । সরাসরি কিভাবে পাসপোর্ট করবেন তা এক এক করে দেখে নিন ।

 

ফর্ম ডাউনলোড লিংক 

 


সবার জন্য প্রযোজ্য

 
১.১) পাসপোর্ট ফর্ম সংগ্রহ করেন এবং পাসপোর্ট ফর্ম এর সব কিছু ডিটেলস একবার পরেন বিশেষ করেন  শেষ পাতা ।
১.২) এবার পাসপোর্ট ফর্মটা পুরুন করা শুরু করেন
১.৩) আপনার সার্টিফিকেট এ যা বানান আছে ঠিক সেই ভাবে পুরুন করেন যদিও ইন্সট্রাকশন দিয়া আছে MD এর স্থলে MOHAMMAD লিখতে কিন্তু ভুলেও এই কাজ করবেন না । অনেকেই এই ভুল করেন কারণ পাসপোর্ট ফর্ম এর পিছনে গাইড লাইন এ "বাঞ্চনীয়-RECOMONDED NOT MANDATORY".
১.৩) আপনার ছবি ষ্টুডিও থেকে প্রিন্ট করবেন । নীলক্ষেত থেকে করালে প্রবলেম করবে ।
১.৪) ছবি আঠা দিয়া লাগানোর পর সত্যায়িত করবেন ।
১.৫) যিনি সত্যায়িত করবেন তার বিস্তারিত তথ্য পিছনের পাতায় দিতে হবে + তার সীল, স্বাক্ষর ।
১.৬) জাতীয় পরিচয় পত্রের ১ কপি করে লাগবে প্রত্যেক* ফর্মের জন্য + সত্যায়িত ।
১.৮) আপনার বর্তমান এবং স্থায়ী টিকানা আলাদা হইলে দুই ঠিকানায় পুলিশ ভেরিফিকাসীয়ন হবে । তাই চেষ্টা করেন দুই জায়গায় ন্যাশনাল id কার্ড রাখতে ।
১.৯) চাকুরিজীবি হইলে তার প্রমান পত্র আবশ্যকীয়, আপনি যে অফিস এ চাকুরী করেন তাদের কাছ থেকে একটা চিটি আনতে হবে, অফিস এর সীল, স্বাক্ষর সহ ।
 

১) ছাত্র হইলে :-
১.১) দুই কপি পাসপোর্ট ফর্ম সংগ্রহ করেন এবং পাসপোর্ট ফর্ম এর সব কিছু ডিটেলস একবার পরেন বিশেষ করেন  শেষ পাতা ।
 
১.২) স্টুডেন্ট id কার্ড এর ফটো কপি ১টা করে প্রত্যেক ফর্ম এর জন্য + সত্যায়িত।
১.৬) জাতীয় পরিচয় পত্রের ফটো কপি ১টা করে প্রত্যেক ফর্ম এর জন্য + সত্যায়িত ।
১.৭) দুইটা ফর্ম same হবে including সব ডকুমেন্ট (জাতীয় পরিচয়, ছবি, সত্যায়িত)


2)  এর আগে পাসপোর্ট করে থাকেন
২.১) এক কপি* পাসপোর্ট ফর্ম সংগ্রহ করেন
২.২) আগের পাসপোর্ট expire হইলে ১৫০০ টাকা জমা দিয়া রিনিউ করাতে হবে এবং রশিদ নম্বর(হাতে লিখা নম্বর টি কিন্তু রশিদ নম্বর ) ফর্মে লিখতে হবে । সেক্ষেত্রে আপনার দুইটা রশিদ নম্বর  কমা অথবা (+) দিয়া লিখতে হবে ।
২.৩) দুইটা রশিদ ই ফর্মের উপর আঠা দিয়া একটার উপর একটা লাগাতে হবে ।
২.৪) আপনি আগের পাসপোর্ট ফেলে দিতে পারেন কিন্তু সেক্ষেত্রে ভবিষ্যতে সমস্যা হতেও পারে । রিনিউ করলে পুলিশ  verification হবেনা । দুই বর্তমান ও স্থায়ী ঠিকানা পুলিশ verification গেলেই ৫০০+৫০০ = ১০০০ টাকার নিচে তারা move করেনা তাই আমার মতে রিনিউ করাটাই ভালো ।
২.৫) আগের পাসপোর্ট এর প্রথম ৯ পেজ এর ফটো কপি করাতে হবে + সত্যায়িত ।
২.৬) ফর্ম জমা দিয়ার সময় পুরান পাসপোর্ট সঙ্গে নিতে ভুলবেননা ।
২.৭) নতুন পাসপোর্ট নিতে গেলেও পুরান পাসপোর্ট সঙ্গে নিতে হবে এবং পুরানটা নিয়া নিবে হইত কিন্তু আমারটা নেয় নাই ।

 
৩) যদি নাবালক (১৮-) এর ক্ষেত্রে
৩.১) Birth সার্টিফিকেট আবশ্যকীয় যেটা কিনা সিটি কর্পোরেশন থেকে আপনি সংগ্রহ করতে পারবেন সেক্ষেত্রে আপনার একদিন সময় লাগবে ।
৩.২) Birth সার্টিফিকেট এর নম্বর ফর্ম এ দিতে হবে ।
৩.৩) পিতা মাতার আলাদা আলাদা স্ট্যাম্প সাইজের পিকচার ফর্মের ডান পাশে ফর্মের মাথায় আঠা দিয়া লাগাতে হবে + সত্যায়িত ।
৩.৪) আপনার সন্তানের পাসপোর্ট সাইজের ছবি আপনাকে তুলে নিয়া যেতে হবে যদি ৩ বছরের নিচে হয় ।

 
৪) স্ত্রীর পাসপোর্ট :-
৪.১) স্ত্রীর পাসপোর্ট এ যদি স্বামীর তথ্য যেমন নাম, ঠিকানা থাকে সেক্ষেত্রে বিবাহের সার্টিফিকেট দিতে হবে ।

 
 
 
পুলিশ সত্যাখ্যান :)
৫)আপনার বর্তমান এবং স্থায়ী টিকানা আলাদা হইলে :-
৫.১) দুই জায়গায় পুলিশ যাবে (১০০%)
৫.২) আপনার জাতীয় পরিচয় পত্রের কপি দুই জায়গায় তারা চাইবে না দিতে পারলে বুজতেই পারছেন
৫.২) ৫ দিনের মধ্যে পুলিশ আপনার টিকানায় হাজির হবে । মোবাইল সর্বদা চালু রাখেন ।

**এখন শুনলাম পুলিশ verification বন্ধ করে দিচ্ছে ।
 
একটা স্যাম্পল ফর্ম:


 

অনলাইন পাসপোর্ট ফর্ম পুরুন করতে পারেন । যেখানে আপনার অনেক সমস্সা কম হবে বলে আমার মনে হই । সেক্ষেত্রে ভালো করে দেখে নিয়েন আপনার বর্তমার ঠিকানা* কি দিচ্ছেন ।

অনলাইন পাসপোর্ট ফর্ম পুরুন নিচের টিকানায় পাবেন ।
http://www.passport.gov.bd/